বিবাহবিচ্ছেদ করে ইতিহাস গড়লেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

স্ত্রী ম্যারিনা উইলারের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ করে ইতিহাস গড়লেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থাকা অবস্থায় বিবাহ বিচ্ছেদের দ্বিতীয় ঘটনা এটি। এখন থেকে আড়াইশ’ বছর আগে ১৭৬৯ সালে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে স্ত্রীকে ডিভোর্স দিয়েছিলেন অগাস্টাস ফিটজরয়। খবর বিবিসির।১৯৯৩ সালে প্রথম স্ত্রী অ্যালেগ্রা মোস্টাইন আওয়েনের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের মাত্র ১২ দিনের মধ্যে ম্যারিনা উইলারকে বিয়ে করেন বরিস। তাদের ঘরে দুই ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। ২০১৮ থেকে বরিস-উইলারের বিবাহবিচ্ছেদের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল। ২ বছর পর তা শেষ হলো।ম্যারিনার বাবা একজন সাংবাদিক এবং মা ভারতীয় বংশোদ্ভূত। ইউরোপিয় এক স্কুলে একসঙ্গে পড়াশোনা করেছিলেন বরিস ও উইলার। উইলারের সঙ্গে ডিভোর্সের ফলে এবার প্রেমিকা তথা বাগদত্তা ক্যারি সাইমন্ডসকে বিয়ের রাস্তায় কোনো বাধা রইল না জনসনের।গত ২৯ এপ্রিল লন্ডনের এক হাসপাতালে ছেলের জন্ম দিয়েছেন বরিস জনসনের প্রেমিকা ক্যারি। প্রসঙ্গ, জনসনের আরও পাঁচ সন্তান রয়েছে।

স্ত্রী ম্যারিনা উইলারের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ করে ইতিহাস গড়লেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থাকা অবস্থায় বিবাহ বিচ্ছেদের দ্বিতীয় ঘটনা এটি। এখন থেকে আড়াইশ’ বছর আগে ১৭৬৯ সালে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে স্ত্রীকে ডিভোর্স দিয়েছিলেন অগাস্টাস ফিটজরয়। খবর বিবিসির।১৯৯৩ সালে প্রথম স্ত্রী অ্যালেগ্রা মোস্টাইন আওয়েনের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের মাত্র ১২ দিনের মধ্যে ম্যারিনা উইলারকে বিয়ে করেন বরিস। তাদের ঘরে দুই ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। ২০১৮ থেকে বরিস-উইলারের বিবাহবিচ্ছেদের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল। ২ বছর পর তা শেষ হলো।ম্যারিনার বাবা একজন সাংবাদিক এবং মা ভারতীয় বংশোদ্ভূত। ইউরোপিয় এক স্কুলে একসঙ্গে পড়াশোনা করেছিলেন বরিস ও উইলার। উইলারের সঙ্গে ডিভোর্সের ফলে এবার প্রেমিকা তথা বাগদত্তা ক্যারি সাইমন্ডসকে বিয়ের রাস্তায় কোনো বাধা রইল না জনসনের।গত ২৯ এপ্রিল লন্ডনের এক হাসপাতালে ছেলের জন্ম দিয়েছেন বরিস জনসনের প্রেমিকা ক্যারি। প্রসঙ্গ, জনসনের আরও পাঁচ সন্তান রয়েছে।

স্ত্রী ম্যারিনা উইলারের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ করে ইতিহাস গড়লেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থাকা অবস্থায় বিবাহ বিচ্ছেদের দ্বিতীয় ঘটনা এটি। এখন থেকে আড়াইশ’ বছর আগে ১৭৬৯ সালে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে স্ত্রীকে ডিভোর্স দিয়েছিলেন অগাস্টাস ফিটজরয়। খবর বিবিসির।১৯৯৩ সালে প্রথম স্ত্রী অ্যালেগ্রা মোস্টাইন আওয়েনের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের মাত্র ১২ দিনের মধ্যে ম্যারিনা উইলারকে বিয়ে করেন বরিস। তাদের ঘরে দুই ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। ২০১৮ থেকে বরিস-উইলারের বিবাহবিচ্ছেদের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল। ২ বছর পর তা শেষ হলো।ম্যারিনার বাবা একজন সাংবাদিক এবং মা ভারতীয় বংশোদ্ভূত। ইউরোপিয় এক স্কুলে একসঙ্গে পড়াশোনা করেছিলেন বরিস ও উইলার। উইলারের সঙ্গে ডিভোর্সের ফলে এবার প্রেমিকা তথা বাগদত্তা ক্যারি সাইমন্ডসকে বিয়ের রাস্তায় কোনো বাধা রইল না জনসনের।গত ২৯ এপ্রিল লন্ডনের এক হাসপাতালে ছেলের জন্ম দিয়েছেন বরিস জনসনের প্রেমিকা ক্যারি। প্রসঙ্গ, জনসনের আরও পাঁচ সন্তান রয়েছে।

স্ত্রী ম্যারিনা উইলারের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ করে ইতিহাস গড়লেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থাকা অবস্থায় বিবাহ বিচ্ছেদের দ্বিতীয় ঘটনা এটি। এখন থেকে আড়াইশ’ বছর আগে ১৭৬৯ সালে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে স্ত্রীকে ডিভোর্স দিয়েছিলেন অগাস্টাস ফিটজরয়। খবর বিবিসির।১৯৯৩ সালে প্রথম স্ত্রী অ্যালেগ্রা মোস্টাইন আওয়েনের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের মাত্র ১২ দিনের মধ্যে ম্যারিনা উইলারকে বিয়ে করেন বরিস। তাদের ঘরে দুই ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। ২০১৮ থেকে বরিস-উইলারের বিবাহবিচ্ছেদের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল। ২ বছর পর তা শেষ হলো।ম্যারিনার বাবা একজন সাংবাদিক এবং মা ভারতীয় বংশোদ্ভূত। ইউরোপিয় এক স্কুলে একসঙ্গে পড়াশোনা করেছিলেন বরিস ও উইলার। উইলারের সঙ্গে ডিভোর্সের ফলে এবার প্রেমিকা তথা বাগদত্তা ক্যারি সাইমন্ডসকে বিয়ের রাস্তায় কোনো বাধা রইল না জনসনের।গত ২৯ এপ্রিল লন্ডনের এক হাসপাতালে ছেলের জন্ম দিয়েছেন বরিস জনসনের প্রেমিকা ক্যারি। প্রসঙ্গ, জনসনের আরও পাঁচ সন্তান রয়েছে।

স্ত্রী ম্যারিনা উইলারের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ করে ইতিহাস গড়লেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থাকা অবস্থায় বিবাহ বিচ্ছেদের দ্বিতীয় ঘটনা এটি। এখন থেকে আড়াইশ’ বছর আগে ১৭৬৯ সালে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে স্ত্রীকে ডিভোর্স দিয়েছিলেন অগাস্টাস ফিটজরয়। খবর বিবিসির।১৯৯৩ সালে প্রথম স্ত্রী অ্যালেগ্রা মোস্টাইন আওয়েনের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের মাত্র ১২ দিনের মধ্যে ম্যারিনা উইলারকে বিয়ে করেন বরিস। তাদের ঘরে দুই ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। ২০১৮ থেকে বরিস-উইলারের বিবাহবিচ্ছেদের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল। ২ বছর পর তা শেষ হলো।ম্যারিনার বাবা একজন সাংবাদিক এবং মা ভারতীয় বংশোদ্ভূত। ইউরোপিয় এক স্কুলে একসঙ্গে পড়াশোনা করেছিলেন বরিস ও উইলার। উইলারের সঙ্গে ডিভোর্সের ফলে এবার প্রেমিকা তথা বাগদত্তা ক্যারি সাইমন্ডসকে বিয়ের রাস্তায় কোনো বাধা রইল না জনসনের।গত ২৯ এপ্রিল লন্ডনের এক হাসপাতালে ছেলের জন্ম দিয়েছেন বরিস জনসনের প্রেমিকা ক্যারি। প্রসঙ্গ, জনসনের আরও পাঁচ সন্তান রয়েছে।

স্ত্রী ম্যারিনা উইলারের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ করে ইতিহাস গড়লেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থাকা অবস্থায় বিবাহ বিচ্ছেদের দ্বিতীয় ঘটনা এটি। এখন থেকে আড়াইশ’ বছর আগে ১৭৬৯ সালে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে স্ত্রীকে ডিভোর্স দিয়েছিলেন অগাস্টাস ফিটজরয়। খবর বিবিসির।১৯৯৩ সালে প্রথম স্ত্রী অ্যালেগ্রা মোস্টাইন আওয়েনের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের মাত্র ১২ দিনের মধ্যে ম্যারিনা উইলারকে বিয়ে করেন বরিস। তাদের ঘরে দুই ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। ২০১৮ থেকে বরিস-উইলারের বিবাহবিচ্ছেদের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল। ২ বছর পর তা শেষ হলো।ম্যারিনার বাবা একজন সাংবাদিক এবং মা ভারতীয় বংশোদ্ভূত। ইউরোপিয় এক স্কুলে একসঙ্গে পড়াশোনা করেছিলেন বরিস ও উইলার। উইলারের সঙ্গে ডিভোর্সের ফলে এবার প্রেমিকা তথা বাগদত্তা ক্যারি সাইমন্ডসকে বিয়ের রাস্তায় কোনো বাধা রইল না জনসনের।গত ২৯ এপ্রিল লন্ডনের এক হাসপাতালে ছেলের জন্ম দিয়েছেন বরিস জনসনের প্রেমিকা ক্যারি। প্রসঙ্গ, জনসনের আরও পাঁচ সন্তান রয়েছে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*